জেনে নিন-সিজারের সুবিধা ও অসুবিধা গুলো কি কি ?

0

  

সিজারিয়ান ডেলিভারির করার ফলে আপনার কি কি সুবিধা এবং অসুবিধা হতে পারে ? সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন

সিজারের সুবিধা ও অসুবিধা গুলো কি কি ?
ছবি:সংগৃহিত

একজন নারী যখন প্রসব বেদনা সহ্য করতে না পারেন কিংবা মা বাচ্চা যদি অন্য কোন জটিলতা থাকে তখন চিকিৎসকরা সিজার বা অস্ত্রোপচার করিয়ে প্রসূতি মায়ের গর্ভ থেকে সন্তান বের করে নিয়ে আসেন। এতে করে মা শিশু দুজনের জীবনই রক্ষা পায়। চিকিৎসক বিশেষজ্ঞ দের মতে, যে সব নারীদের  সি-সেকশন ডেলিভারি হয় তাদের শরীরে উপর কিছু না কিছু প্রভাব পড়বেই। তবে সব কিছুর ক্ষেত্রেই ভালো দিক এবং খারাপ দিক থাকে। ঠিক তেমনি করে সি-সেকশন অপারেশন করার ফলে আপনি সুবিধা এবং অসুবিধা উভয়ের সম্মুখীন হতে পারেন। তাই ডেলিভারির আগে যদি আমরা এই সব সুবিধা-অসুবিধা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই তাহলে ডেলিভারির সময় বা পরে যে কোন পরিস্থিতির মোকাবেলা করা নারীদের জন্য সহজ হবে। সে জন্য সিজারিয়ান ডেলিভারির সুবিধা এবং অসুবিধা গুলো সম্পর্কে আমাদের বিস্তারিত ধারণা থাকা অত্যন্ত জরুরি।

এখন চলুন আমরা সিজারিয়ান ডেলিভারির সুবিধা এবং অসুবিধা গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই,

 সিজারিয়ান ডেলিভারির করার ফলে আপনার কি কি সুবিধা হতে পারে ?

সিজারিয়ান ডেলিভারি করার ফলে আপনার যে যে সুবিধা গুলো হতে পারে তা নিয়ে নিম্নে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো

যোনির ভিতেরর স্থান ছিঁড়ে যাওয়ার ভয় থাকে না :

সি-সেকশন অপারেশনের মাধ্যমে যদি আপনার প্রসব হয় তাহলে আপনার যোনির ভিতেরর স্থান ছিঁড়ে যাওয়ার ভয় থাকে না। কারণ সিজারিয়ান ডেলিভারিতে আপনার যোনি এলাকার উপর প্রেসার বা চাপ স্বাভাবিক প্রসবের চেয়ে অপেক্ষাকৃত কম পড়ে। যার জন্য আপনার ব্যাক সাইড স্থানে, পেরিনিয়াম এবং যোনির মধ্যেকার জায়গাটিতে ছিঁড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে না। কিন্তু স্বাভাবিক প্রসব হলে এই ধরনের আশঙ্কা অনেক বেশি বেড়ে যেতে পারে।

 রক্তপাতের পরিমাণ কম হওয়া :

অস্ত্রোপচার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে যদি আপনার ডেলিভারি হয় তাহলে আপনার প্রসবের সময় রক্তক্ষরণের মাত্রা কম থাকবে এবং প্রসবের পরে প্রথম কয়েক দিনের মধ্যে আপনার যোনি পথ দিয়ে রক্তপাতের পরিমাণ অনেক কম থাকবে। কারণ এই ধরনের অপারেশনের সময় বাইরে থেকে পেট কেটে ইউটেরাস থেকে বাচ্চা বেরিয়ে আনার কারণে আপনার ইন্টারনাল প্রেসার তেমন থাকে না। যার জন্য আপনার ইন্টারনাল ব্লিডিং এর পরিমাণ কম হবে।

অস্বস্তি কম হওয়া :

প্রসবের আগে সব নারীদেরই পেইন হয়। সি-সেকশন অপারেশনের সময় আপনার যথেষ্ট পরিমাণ পরিমাণ পেইন হতে পারে। তবে আপনার সিজারিয়ান ডেলিভারি হলে যোনি এবং পেরিনিয়াম অঞ্চলে প্রেসার কম পড়ে। সে জন্য আপনি স্বাভাবিক প্রসবের ক্ষেত্রে হওয়া যোনি এবং পেরিনিয়ামের মধ্যেকার অঞ্চলের ব্যথা এবং আঘাত থেকে রক্ষা পেয়ে যেতে পারেন। জন্য সি-সেকশন অপারেশনে প্রসবের সময় আপনার অস্বস্তি তুলনামূলক ভাবে একটু কম হবে।

পানি কম বের হবে :

সি-সেকশন অপারেশনের মাধ্যমে বাচ্চা প্রসব সময় আপনার ইন্টারনাল প্রেসার কম হওয়ার কারণে শরীর থেকে রক্তের সাথে তরল জাতীয় পদার্থ কম পরিমাণে বের হবে। আর এই ধরণের অপারেশনে বাচ্চা প্রসবের পরে যেমন : হাঁচি-কাশি দেয়া বা হাসার সময় সেলাই মজবুত থাকার কারণে স্থানে তুলনামূলক ভাবে কম প্রেসার পড়ে। সে জন্য সিজারিয়ান ডেলিভারি হলে আপনার শরীর থেকে কম পানি বের হবে।

পেলভিক অঞ্চলের ক্ষতির সম্ভাবনা কম থাকে :

অস্ত্রোপচার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বাচ্চা প্রসবের সময় ডাক্তার আপনার তলপেটে কেটে ইউটেরাস থেকে বাচ্চা বের করা হয় জন্য পেলভিক অঞ্চলে উপর প্রেসার কম পড়ে।  পেলভিক এলাকার মাঝের অংশের কোনো রকম ক্ষতি হয় না। সে জন্য সিজারিয়ান ডেলিভারি হলে আপনার পেলভিক অঞ্চলের ক্ষতির সম্ভাবনা স্বাভাবিক প্রসবের চেয়ে কম থাকবে।

সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার ভয় থাকে না :

সি-সেকশন অপারেশন হলে পেলভিক,  ইউটেরাসে ইন্টারনাল প্রেসার কম পড়ার কারণে ইন্টারনাল ব্লিডিং কম হয়। জন্য সব স্থানে রক্ত, টিস্যু জালিকা প্রভৃতি লেগে থাকার সম্ভাবনা কম থাকে। তাই সংক্রমণ ছড়ানো বা রোগ হওয়ার ঝুঁকি তেমন থাকে না। আর সে জন্য সি-সেকশন প্রক্রিয়ায় যদি আপনার প্রসব করানো হয় তাহলে আপনার কাছ থেকে শিশুর কাছে সংক্রমণ যাওয়ার ঝুঁকি কমে যাবে।

যৌন সমস্যা কম হবে :

সি-সেকশন অপারেশনের মাধ্যমে যদি আপনার প্রসব হয় তাহলে আপনার যোনি এবং পেরিনিয়াম এলাকায় কোন প্রকার কাটা ছেঁড়া থাকে না। জন্য এই ধরনের ডেলিভারি হলে আপনার ইউটেরাস বা জরায়ুতে কোন প্রকার সংক্রমণ বা যৌন সমস্যা হওয়ার ঝুঁকি দেখা দেয়ার আশঙ্কা কম থাকবে।

পরিকল্পিত ভাবে প্রসব :

সি-সেকশন ডেলিভারির একটি অন্যতম সুবিধা হল এই প্রক্রিয়ায় পরিকল্পিত ভাবে বাচ্চা প্রসব করানো হয়ে থাকে। এই ধরণের অপারেশনে যদি আপনার প্রসবটি পরিকল্পিত থাকে তাহলে আপনি আপনার এবং শিশুর চাহিদাগুলি আগে থেকে বুঝতে পারবেন এবং সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে পারবেন।

Umbilical Cord প্লাসেন্টায় জটিলতার আশঙ্কা থাকে না :

Umbilical Cord এর মাধ্যমে আপনার সাথে বাচ্চার ভ্রুণের যোগাযোগ বজায় থাকে। আার প্লাসেন্টা বা অমরার মাধ্যমে আপনার দেহ থেকে ভ্রূণের থেকে পুষ্টিদ্রব্য অক্সিজেন পৌঁছায়। প্রেগন্যান্সি চলাকালীন সময়ে আপনার এই দুই অংশে যদি কোন জটিল সমস্যা থাকে তখন নরমাল ডেলিভারি করতে আপনার বাচ্চা দুজনের ক্ষতি হতে পারে। কিন্তু যদি আপনার সিজারিয়ান ডেলিভারি হয় তাহলে এই ধরনের জটিলতা ঘটার আশঙ্কা তুলনামূলক ভাবে কম থাকবে।

 গর্ভে একাধিক সন্তান থাকলে জটিলতা হয় না  :

আপনার গর্ভে যদি একের অধিক সন্তান থাকে তাহলে সি-সেকশন অপারেশনের সময় তেমন কোন জটিলতা সৃষ্টি হয় না। কিন্তু একের বেশি সন্তান মায়ের গর্ভে থাকলে প্রসবের সময় নরমাল ডেলিভারি করলে আপনার এবং সন্তানের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা তুলনামূলক ভাবে বেশি থাকবে।

বাচ্চার জন্মের সময়ে আঘাতের ঝুঁকি থাকে না :

সিজারিয়ান প্রক্রিয়ায় প্রসবের ক্ষেত্রে সাঁড়াশির ব্যবহার তুলনামূলক ভাবে কম হয়। আর সে জন্য আপনার বাচ্চা জন্মের সময়কার আঘাতে ভোগার ঝুঁকি তুলনামূলক ভাবে অনেক কম থাকবে।

ডায়াবেটিস হওয়ার পরেও জটিলতা কম থাকা :

আমরা সবাই জানি, ডায়বেটিস একটি জটিল ব্যধি। আপনি যদি গর্ভাবস্থার আগে থাকে থেকে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত থাকেন কিংবা গর্ভাবস্থায় থাকা কালীন যদি আপনার ডায়াবেটিস হয় তাহলে আপনার গর্ভের সন্তান ওজন স্বাভাবিক ওজনের তুলনায় বেশি হয়ে যাবে। এই রকম সিচুয়েশন হলে জরায়ুতে বেশি প্রেসার পড়ার কারণে আপনার যদি  যোনি প্রসব করানো হয় তাহলে জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে। কিন্তু এই সিচুয়েশনে আপনার সিজারিয়ান ডেলিভারি করানো হলে এই ধরনের জটিলতা গুলো কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে। 

আরও জানুন:ডায়াবেটিস হলে করণীয় কি? ডায়াবেটিস এবং তার প্রতিরোধ কিভাবে করবেন?

উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা থাকলেও ঝুঁকি কম হওয়া :

প্রেগন্যান্সির আগে অথবা প্রেগন্যান্সি চলা কালীন সময়ে যদি আপনার উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা ধরা পড়ে তাহলে বাচ্চা প্রসবের সময় আপনার প্রসব যন্ত্রণা সহ্য করতে অসুবিধা হতে পারে। এমতবস্থায় সাধারণত চিকিৎসকরা সিজারিয়ান ডেলিভারির পরামর্শ দিয়ে থাকেন। এর ফলে জটিলতা গুলো অতিক্রম করা যাবে এবং এর সাথে গর্ভবতী মায়ের মৃত্যু ঝুঁকির আশঙ্কা কম হবে।

 সিজারিয়ান ডেলিভারির করার ফলে আপনার কি কি অসুবিধা হতে পারে ?

সিজারিয়ান ডেলিভারি করার ফলে আপনার যে যে অসুবিধা গুলো হতে পারে তা নিয়ে নিম্নে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো

সিজারিয়ান ডেলিভারির করার ফলে আপনার কি কি অসুবিধা হতে পারে ?
ছবি:সংগৃহিত

সেরে উঠতে অনেক সময় লাগে :

সি-সেকশনের অপারেশনের অসুবিধা গুলোর মধ্যে অন্যতম সমস্যা হল এই অপারেশনে সেরে ওঠতে অনেক সময় লেগে যায়। কারণ অপারেশনের সময় আপনার শরীরে অনেক প্রেসার পড়ে যায়। আর সিজারিয়ান অপারেশনের সময় আপনার তলপেট জরায়ু কেটে বাচ্চা বের করা হয়। এরপর সেখানে সেলাই দিয়ে জোড়া লাগানো হয়। এই জন্য মাঝে মধ্যে সেলাইয়ের জায়গায় আপনার প্রদাহ হতে পারে। আর পুরোপুরি শুকাতে অনেক সময় লেগে যায়। সে জন্য সিজারিয়ান ডেলিভারিতে আপনার সেরে উঠতে অনেকটা সময় লেগে যেতে পারে। 

পেটের মাসেল কমজোর হয়ে যাওয়া :

সি-সেকশন প্রক্রিয়ায় ডেলিভারির সময় আপনার তলপেট কেটে বাচ্চা বের করা হয়। আর পেট কাটার সময় আপনার পেটের ভিতরে থাকা মাসেল বা পেশি গুলোতে অনেক বেশি প্রেসার পড়ে যায় এবং বাচ্চা বের করার পরে পেট সেলাই করে জোড়া দেয়া হয়, এই সেলাইয় করার সময় অনেক সময় মাসেল গুলোতে আঘাত লাগতে পারে তাই অপারেশন করে পেট জোড়া লাগালে আপনার পেটের পেশিতে আগের মতো স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে না। বরং পেশি গুলো কমজোর বা দূর্বল হয়ে যায়।

অপারেশনে জটিলতা দেখা দেওয়া :

সি-সেকশন অপারেশন করার সময় কখনও কখনও জটিলতা আশঙ্কা দেখা দিতে পারে। আর এই জটিলতা গুলো যেমন : ব্লিডিং হওয়া,  অ্যান্থেশিয়ার নেগেটিভ ইফেক্ট প্রভৃতি বেশি দেখা যায়। যার প্রভাব সরাসরি আপনার অপারেশন এর উপর পড়তে পারে। আর জটিলতা বেশি জোরালো হলে মৃত্যু ঝুঁকির আশঙ্কা পর্যন্ত দেখা দিতে পারে।

 রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়া :

সিজারিয়ান প্রক্রিয়ায় আপনার অপারেশন হলে শরীর থেকে রক্তের সাথে প্রয়োজনীয় তরল জাতীয় পদার্থ বেরিয়ে যায়। জন্য শরীর অনেক বেশি দূর্বল হয়ে পড়ে।  সময় শরীর দূর্বল থাকার কারণে আপনার Immune system ঠিক মত কাজ করে না। আর ইমিউন সিস্টেমে সমস্যা দেখা দিলে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাবে এবং রোগ ব্যধি আক্রমণ করার ঝুঁকি বেশি হবে।

Hysterectomy বা জরায়ু ছেদন করা :

রেয়ার কেচ হলে সাধারণত এই ধরণের ঘটনা ঘটে যেমন : সি-সেকশন অপারেশন এর সময় আপনার অবস্থা যদি বেশি খারাপ হয়ে যায় তাহলে আপনার স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে জরায়ু ছেদন বা হিস্টেরেক্টমি করতে হতে পারে।

অপারেশন করার পরেও আবার অস্ত্রোপচারের ঝুঁকি সৃষ্টি হওয়া :

সি-সেকশন অপারেশনে সময় যদি আপনার কোন ক্ষতি হয় আর সেটা যদি পরে গিয়ে আপনার শরীরে কোন প্রকার জটিলতার সৃষ্টি করে তাহলে পুনরায় আপনার অস্ত্রোপচার করার প্রয়োজন হতে পারে।

মানসিক অবসাদ ক্লান্তি বেড়ে যাওয়া :

এই ধরনের ডেলিভারিতে একটা বড় প্রভাব আপনার ব্রেনের উপর পড়বে। কারণ আমাদের শরীরের সব অঙ্গ প্রতঙ্গই মস্তিষ্ক পরিচালক করে। সময় শরীরে বল না থাকার কারণে আপনার ক্লান্তি বেড়ে যেতে পারে। আর এই ক্লান্তি থেকে মানসিক অবসাদ, হতাশা প্রভৃতির সৃষ্টি হতে পারে।

 আরও জানুন:

সিজারের পর কোমর ব্যাথার কারণ ও সমাধান

প্রথম সিজারের কত দিন পর দ্বিতীয় সন্তান নেয়া নিরাপদ ?

অবশেষে আমরা বলতে পারি যে,

গর্ভাবস্থায় থাকা কালীন সময়ে এবং প্রসবের সময় অধিকাংশ গর্ভবতী মায়েরাই ভয়ের কারণে সিজারিয়ান ডেলিভারি করাতে চান না। আর এই ভয়ের কারণে তাদের অবস্থা আরও বেশি কমপ্লেক্স হয়ে যায়। তাই এটা বোঝা জরুরি যে, তাদের শরীরে যদি কোন জটিলতা থাকে কেবলমাত্র তখনই ডাক্তার এই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন। কারণ, একটি অপরিকল্পিত সি-সেকশনই পারে একজন অন্তঃসত্ত্বা মা এবং তার সন্তান উভয়ের জীবন রক্ষক হতে। তাই সিজারিয়ান ডেলিভারি করার আগে অবশ্যই আপনাকে উপরিউক্ত বিষয় গুলোর প্রতি লক্ষ্য রাখতে হবে এবং চিকিৎসকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী চলতে হবে।

Tags

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
Top