মুখের ক্যন্সার (Mouth Cancer) কী ? মুখের ক্যন্সারের লক্ষণ বা উপসর্গ গুলো কী কী ?

0

মুখের ক্যন্সার (Mouth Cancer) কী ? মুখের ক্যন্সার কী কারণে হয়ে থাকে ? মুখের ক্যন্সারের লক্ষণ বা উপসর্গ গুলো কী কী ? কী উপায় অবলম্বন করলে মুখের ক্যান্সার প্রতিরোধ করা যায় ? সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন

মুখের ক্যন্সার (Mouth Cancer) কী ? মুখের ক্যন্সারের লক্ষণ বা উপসর্গ গুলো কী কী ?
ছবি :সংগৃহিত

বর্তমানে বিশ্বের প্রায় অধিকাংশ মানুষ মুখের ক্যান্সারের শিকার হচ্ছেন। প্রতিনিয়ত এই ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং সেই সাথে মৃত্যুর হার ক্রমাগত ভাবে বেড়েই চলেছে। মুখের ক্যন্সার মূলত অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের কারণে হয়ে থাকে এবং আমাদের মধ্যে অনেক মানুষ আছেন যারা মুখের ক্যান্সার হলে এর লক্ষ্মণ গুলো ঠিক মত বুঝতে পারেন না। এজন্য চিকিৎসা করাতে চান না। এর ফলে এই ক্যান্সারের জীবাণু পুরো শরীরে ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা থাকে। এর ফলে রোগীর মৃত্যু পর্যন্ত ঘটতে পারে। অন্য সব ক্যান্সারের চেয়ে মুখের ক্যান্সারে মৃত্যুর ঝুঁকি তুলনামূলক ভাবে বেশি থাকে।
তাই মুখের ক্যান্সার সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা থাকা অত্যন্ত জরুরি।

এখানে যা যা থাকছে,
  • মুখের ক্যন্সার (Mouth Cancer) আসলে কী ?
  • কাদের Oral Cancer (মুখের ক্যন্সারহয়ে থাকে ?
  • Oral Cancer বা মুখের ক্যন্সার কী কারণে হয়ে থাকে ?
  • কী উপায় অবলম্বন করলে Oral Cancer বা মাউথ ক্যান্সার প্রতিরোধ করা যায় ?
মুখের ক্যন্সার (Mouth Cancer) আসলে কী ?

 Mouth Cancer বা মুখের ক্যন্সারকে অনেক সময় Oral Cancer বলা হয়ে থাকে। যেটা Mouth বা মুখের ভিতরে সংঘটিত হয়ে থাকে। যখন মুখগহ্বরের ভিতরে কোষগুলো অস্বাভাবিক বা অনিয়ন্ত্রিত ভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকে তখন এই অবস্থাকে মুখের ক্যান্সার বা Oral Cancer বলা হয়ে থাকে। মুখের ভিতরে কোষগুলোর ক্রমাগত ভাবে পরিবর্তনের কারণে মুখের ক্যান্সার বা Mouth Cancer সৃষ্টি হয়ে থাকে।

 

কাদের Oral Cancer (মুখের ক্যন্সার) হয়ে থাকে ?

Oral Cancer বা মুখের ক্যান্সার নারী পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রেই দেখা দিতে পারে। নারীদের তুলনায় পুরুষের মুখের ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। Oral Cancer বা মুখের ক্যান্সার হওয়ার কোন নির্দিষ্ট বয়সসীমা থাকে না। তার মানে হল যে কোন বয়সের মানুষের ভিতরে Mouth Cancer বা মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা দেখা দিতে পারে। তবে মধ্যবয়স্কদের মধ্যে Mouth Cancer বা মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

 

Oral Cancer বা মুখের ক্যন্সার কোন জায়গায় বেশি দেখা যায় ?

সাধারণত মুখগহ্বরের ভিতরে নিম্নলিখিত জায়গাগুলোতে Oral Cancer বা মুখের

ক্যন্সার বেশি দেখা যায়।

* ঠোঁট (Lips)

* মাড়ি (Gums)

* জিহ্বা (Tongue)

* মুখের তালু (Palate)

* মুখের মেঝে বা জিহ্বার নিচে (Below the Tongue)

* গালের ভিতরের অংশ (The inside of the Cheek)

কী উপায় অবলম্বন করলে Oral Cancer বা মাউথ ক্যান্সার প্রতিরোধ করা যায় ?

Oral Cancer বা মাউথ ক্যান্সার হওয়ার পেছনে কয়েকটি উল্লেখযোগ্য কারণ রয়েছে। কারণ গুলো সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো :

ধূমপান বা তামাক সেবন করলে :

Oral Cancer বা মাউথ ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার অন্যতম কারণগুলোর মধ্যে প্রধান কারণ হল ধূমপান বা তামাক সেবন করা। নিয়মিত ধূমপান এবং তামাক জাতীয় দ্রব্য সেবন করার ফলে মুখের ভিতরের কোষগুলো মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করে। যা পরবর্তীতে মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিকে বাড়িয়ে তোলে।

অতিরিক্ত তৈলাক্ত খাবার গ্রহণ করলে :

অতিরিক্ত তৈলাক্ত জাতীয় খাবার গ্রহণ করার ফলে মাউথ ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। কারণ এই সব অতিরিক্ত তেল-চর্বি জাতীয় খাবার মুখগহ্বরের জমে থাকলে বা ঠিকমত পরিপাক না হলে পরবর্তীতে এগুলো মুখের কোষের অনিয়ন্ত্রিত বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এর ফলে মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়।

 

মদ্যপান করলে :

অতিরিক্ত মাত্রায় মদ্যপান এবং উচ্চ মাত্রায় অ্যালকোহল জাতীয় দ্রব্য গ্রহণ করার ফলে Oral Cancer বা মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা দেখা দিতে পারে। মদের ভিতর উচ্চ মাত্রার অ্যালকোহল মিশ্রিত থাকে। তাই এসব দ্রব্য গ্রহণ করার ফলে মুখের ক্যান্সার হতে পারে।

রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা দূর্বল থাকলে :

রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা দূর্বল থাকার কারণে শরীরে বিভিন্ন ধরনের জটিল রোগ সৃষ্টি হতে পারে। এর ফলে রোগী ঘন ঘন অসুখ-বিসুখে আক্রান্ত হয়ে থাকে। সময় খাবার হজমে সমস্যা দেখা দিতে পারে। যার ফলে মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যেতে পারে।

বংশগত কারণে :

পরিবারের কোন সদস্য যদি আগে থেকে Oral Cancer বা মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত থাকেন তাহলে পরিবারের বাকি সদস্যদের ক্ষেত্রে এই ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

HPV (এইচপিভি) তে আক্রান্ত থাকলে :

কোন ব্যাক্তি যদি আগে থেকে Human Papilloma Virus বা HPV (এইচপিভি) তে আক্রান্ত থাকেন তাহলে সেই ব্যাক্তির ক্ষেত্রে Oral Cancer বা মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

পুষ্টির অভাব থাকলে :

পুষ্টির অভাব হলে মাউথ ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। কারণ পুষ্টির অভাব থাকলে মুখগহ্বরের খাবার গুলো ঠিক মত পরিপাক হয় না। এর ফলে মুখগহ্বরের কোষগুলো অনিয়ন্ত্রিতভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকে। যার ফলে মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে।

দীর্ঘসময় ধরে সূর্যের তাপে থাকলে :

দীর্ঘসময় ধরে অতিরিক্ত সূর্যের তাপে থাকার কারণে Oral Cancer বা মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিতে পারে।

 

Oral Cancer বা মুখের ক্যন্সারের লক্ষ্মণ বা উপসর্গ গুলো কী কী ?

সাধারণত Oral Cancer বা মাউথ ক্যন্সারে আক্রান্ত হলে আমরা অনেকেই এর লক্ষ্মণ গুলো ঠিক মত বুঝতে পারি না। এর ফলে এই ক্যান্সার ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে। নিচে মুখের ক্যন্সারের লক্ষ্মণ গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো :

খাবার গিলতে অসুবিধা :

Oral Cancer বা মুখের ক্যন্সারের অন্যতম প্রধান লক্ষ্মণগুলোর মধ্যে একটি হল খাবার গিলতে অসুবিধা হওয়া। যে সব খাবার সহজেই গিলে ফেলা যায় মুখের ক্যন্সার হলে সেসব খাবার সহজে গিলা যায় না বা অনেক কষ্টে খাবার গিলতে হয়।

গলা ফুলে যাওয়া :

মুখের ক্যন্সার হলে গলা ফুলে যায়। অবস্থা বেশি খারাপ হলে সমস্ত গলা ফুলে যেতে পারে।

মুখে ফোসকা ওঠা :

মাউথ ক্যন্সার হওয়ার ফলে মুখের ভিতরে ফোসকা ওঠতে পারে। সাধারণত এই ফোসকাগুলো দীর্ঘস্থায়ী হয়ে থাকে। অর্থাৎ সহজে সারে না।

গলা ব্যাথা করা :

সাধারণত মুখের ক্যন্সারে আক্রান্ত হলে গলায় অসম্ভব যন্ত্রণা বা ব্যাথা করতে থাকে।

জিহ্বাতে ব্যাথা করা :

মুখের ক্যন্সার হলে জিহ্বাতে ব্যাথা করে। এই জিহ্বা নিচে এবং উপরে উভয় জায়গাতেই দেখা দিতে পারে।

কানে ব্যাথা করা :

Oral Cancer বা মুখের ক্যন্সারে আক্রান্ত হওয়ার কারণে কানের চারপাশ জুড়ে ব্যাথা করতে পারে।

চোয়ালে ব্যাথা করা :

চোয়ালে ব্যাথা করা মুখের ক্যন্সারে আক্রান্ত হওয়ার একটি অন্যতম লক্ষ্মণ। সমস্ত চোয়াল জুড়ে এই ব্যাথা বিস্তার লাভ করে।

 

চোয়াল শক্ত হয়ে যাওয়া :

মুখের ক্যন্সারে আক্রান্ত হওয়ার ফলে মুখের চারপাশে যে নরম মাংসল চোয়াল রয়েছে সেগুলো শক্ত হয়ে যেতে পারে।

দাঁতে শিরশিরানি বেশি হলে :

দাঁতে শিরশিরানি একটি সাধারণ সমস্যা। তবে শিরশিরানি যদি বেশি হয় তখন সেটিও Oral Cancer বা মুখের ক্যন্সারের একটি লক্ষ্মণ হিসেবে ধরে নেয়া হয়।

মুখ অবশ হয়ে যাওয়া :

সাধারণত মুখের ক্যন্সারে আক্রান্ত হওয়ার ফলে মুখের চারপাশ অবশ বা অসার হয়ে যায়। এই অসারতা কাঁধের চারপাশে দেখা দিতে পারে।

মুখ থেকে রক্তপাত হলে :

মুখের ক্যন্সার হলে অস্বাভাবিকভাবে মুখ থেকে রক্তপাত হতে পারে। ক্যান্সারের অবস্থা যদি বেশি খারাপ হয় তখন মুখ থেকে রক্তপাত ঘটে থাকে।

মুখের রঙ পরিবর্তন হয়ে যাওয়া :

অনেক সময় মুখের ক্যন্সারে আক্রান্ত হওয়ার ফলে মুখের রঙ পরিবর্তন হয়ে যেতে পারে। সময় মুখ অনেকটা ফ্যাকাশে দেখায় এবং মুখে সাদা অথবা লাল রঙের দাগ দেখা দিতে পারে।

মসলাদার খাবার খেলে জ্বালা পোড়া করা :

মুখের ক্যন্সারে আক্রান্ত হলে অতিরিক্ত মসলাযুক্ত খাবার খাওয়া যায় না। এসব খাবার খেলে মুখের ভিতরে জ্বালা পোড়া শুরু হয়ে যায়।

হঠাৎ করে ওজন কমে যাওয়া :

হঠাৎ করে ওজন কমে যাওয়া Oral Cancer বা মাউথ ক্যন্সারের একটি লক্ষ্মণ।

 

Oral Cancer বা মুখের ক্যন্সার নির্ণয়ে কোন ধরনের পরীক্ষা করা হয় ?

ক্যান্সারের লক্ষ্মণ এবং অবস্থানের উপর ভিত্তি করে চিকিৎসকরা নিচের পদ্ধতি গুলোর মাধ্যমে Oral Cancer বা মাউথ ক্যান্সার সনাক্ত করে থাকেন।

* CT Scan (সিটি স্ক্যান)

* MRI (এমআরআই)

* PTI (পিইটি স্ক্যান)

* Endoscopy (এন্ডোস্কোপি)

* OPG (ওপিজি)

* EX-ray (এক্স-রে)

* NFC (এনএফসি)

* Biopsy (বায়োপসি)

 

Oral Cancer বা মুখের ক্যন্সারে আক্রান্ত হলে প্রতিকারের উপায়গুলো কী কী ?

সাধারণত Oral Cancer বা মাউথ ক্যন্সারে আক্রান্ত হলে চিকিৎসকরা নিচের পদ্ধতিগুলো অবলম্বন করে রোগীকে চিকিৎসা দিয়ে থাকেন।

Surgery (অস্ত্রোপচার) :

Oral Cancer বা মুখের ক্যন্সার যদি প্রাথমিক অবস্থায় ধরা পড়ে অর্থাৎ ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি যদি বেশি না হয় তাহলে এই ক্যান্সারযুক্ত কোষ বা টিউমার সার্জারি বা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে মুখগহ্বরের ভিতর থেকে অপসারণ করা হয়।

Radio Therapy (বিকিরণ থেরাপি) :

Mouth Cancer বা মুখের ক্যান্সারে কোষের বৃদ্ধি যদি বেশি মাত্রায় হয় তখন সার্জারির আগে রেডিও থেরাপি বা বিকিরণ থেরাপির মাধ্যমে ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি কমিয়ে ফেলা হয়। অর্থাৎ ক্যান্সার কোষের কার্যক্ষমতা নষ্ট করে দেয়া হয়। সার্জারি পরেও অনেক সময় প্রয়োজন অনুসারে রেডিও থেরাপি বা বিকিরণ থেরাপি দেয়া হয়ে থাকে।

Chemotherapy (কেমোথেরাপি) :

সাধারণত প্রথমে সার্জারি করে ক্যান্সার কোষ বা টিউমার মুখগহ্বর থেকে অপসারণ করা হয়। এর পরে কেমোথেরাপি দেয়া হয়। কেমোথেরাপি দেয়ার মূল উদ্দেশ্য হল ক্যান্সার কোষগুলো যাতে পুনরায় সৃষ্টি হতে না পারে। অর্থাৎ কেমোথেরাপি দেয়ার ফলে ক্যান্সার কোষগুলো পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায়।

Targeted Therapy (টারগেটেড থেরাপি) :

টারগেটেড থেরাপির মাধ্যমে নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ মুখগহ্বরের ভিতরে প্রয়োগ করানো হয় এর ফলে ক্যান্সার কোষগুলোকে নষ্ট হয়ে যায়।

 

কী উপায় অবলম্বন করলে Oral Cancer বা মাউথ ক্যান্সার প্রতিরোধ করা যায় ?

নিচের নিয়মগুলো যদি ঠিকমত অনুসরণ করা যায় তাহলে Oral Cancer বা মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেকাংশেই কমানো সম্ভব হতে পারে।

জীবনযাত্রার পরিবর্তন করা :

মুখের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে হলে সবার আগেই জীবনযাত্রার মানের পরিবর্তন করতে হবে। রোগ-ব্যাথি সম্পর্কে সব সময় সচেতন থাকতে হবে। অসুখ-বিসুখ দেখা দেয়ার সাথে সাথে হেলা-ফেলা না করে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

ধূমপান এবং মদ্যপান ত্যাগ করা :

মুখের ক্যান্সার হওয়ার হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করার জন্য অবশ্যই ধূমপান এবং মদ্যপান বর্জন করতে হবে। এর ফলে ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থগুলো মুখগহ্বরের ভিতরে ঢুকতে পারবে না এবং মুখের ভিতরে কোষের বৃদ্ধিও স্বাভাবিক থাকবে।

তৈলাক্ত খাবার বর্জন করা :

মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়া থেকে নিজেকে বাঁচাতে হলে অবশ্যই অতিরিক্ত তৈলাক্ত খাবার বর্জন করতে হবে।

 

আঁশযুক্ত খাবার খাওয়া :

আঁশযুক্ত খাবার যে কোন ধরনের ক্যান্সার প্রতিরোধে অনেক কার্যকরী। তাই মুখের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে হলে বেশি করে আঁশযুক্ত খাবার খেতে হবে। সবুজ শাক- সবজি, ফলমূল বেশি করে খেতে হবে।

সুষম খাবার গ্রহণ করা :

মুখের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে হলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং মিনারেল সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করতে হবে।

দীর্ঘসময় সূর্যের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলা :

মুখের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে হলে অতিরিক্ত সূর্যের তাপ এড়িয়ে চলতে হবে এবং বছরে অত্যন্ত একবার দাঁতের চেক-আপ করাতে হবে।

 

পরিশেষে বলা যায় যে,

Oral Cancer বা মুখের ক্যান্সার হল মারাত্মক একটি ব্যাধি। তবে প্রাথমিক অবস্থায় যদি মাউথ ক্যান্সারের চিকিৎসা করানো হয় তাহলে রোগী এর থেকে দ্রুত সেরে উঠে সুস্থ এবং স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারেন। কিন্তু যদি সময় মতো চিকিৎসা না করানো হয় তাহলে এই ক্যান্সারের জীবাণু পুরো শরীরে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থাকে। এর ফলে রোগীর মৃত্যু পর্যন্ত ঘটার সম্ভাবনা দেখা দিতে পারে। তাই Oral Cancer বা মুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করতে হলে উপরিউক্ত বিষয় গুলো ঠিক মত অনুসরণ করতে হবে এবং অবশ্যই চিকিৎসকের দেয়া পরামর্শগুলো ঠিক মত পালন করতে হবে।

Tags

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
Top