জেনে নিন-কিভাবে ঘরোয়া উপায়ে কিডনির পাথর দূর করা যায়

0

 কিডনি মানব দেহের খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি  অঙ্গ। এটি ছাড়া মানুষের অস্তিত্ব কল্পনা করা যায় না। কিডনিতে পাথর এখন খুবেই সাধারণ একটি সমস্যা। নারী-পুরুষ উভয়েই এই সমস্যায় আক্রান্ত হতে পারে। এটি এমন অঙ্গ যার 60% থেকে 70% damage না হওয়া পর্যন্ত রোগের লক্ষণ প্রকাশ পায় না ।  রোগ দেরিতে ধরা পড়ায়  এই  রোগে আক্রান্তের সংখ্যা এবং মৃত্যুর হার দিন দিন বেড়েই  চলছে ।

কিভাবে ঘরোয়া উপায়ে কিডনির পাথর দূর করা যায়

ছবি:সংগৃহিত



কিডনির কাজ হল শরীরে প্রবেশ করা ক্ষতিকর বিষাক্ত পদার্থকে ফিল্টার করা। এই অঙ্গটি শরীরে পানি, রাসায়নিক এবং ধাতুর ভারসাম্য বজায় রাখে।  বর্তমান সময়ের সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে  কিডনিতে পাথর। অনেকের কিডনিতে পাথর হচ্ছে। পাথর ছোট হয়ে ছড়িয়ে পড়ে। কিডনিতে পাথর হলে কিডনি ধীরে ধীরে অকেজো হয়ে পড়ে। অনেক কষ্ট হচ্ছে। কিডনিতে পাথর থাকলে সাধারণ চিকিৎসা হলো অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে শরীর থেকে পাথর অপসারণ করা। তবে ঘরোয়া পদ্ধতিতেও কিডনির পাথর দূর করা যায়

কিডনিতে পাথর হলে সাধারণত যে লক্ষণগুলো দেখা দিতে পারে


কিডনিতে পাথর হলে সাধারণত যে লক্ষণগুলো দেখা দিতে পারে
                                                               ছবি:সংগৃহিত

  •  বমি বমি ভাব বা কখনও কখনও বমি হওয়া ।
  •  তলপেটে  প্রচন্ড ব্যাথা , কুঁচকিতে ব্যথা অনুভূত হওয়া ।  
  •  পাঁজরের নীচে তীব্র ব্যথা এবং এই ব্যথার তীব্রতা ওঠানামা করতে পারে ।
  • প্রস্রাবে জ্বালা-পোড়া করা এবং গাঢ় লাল, লাল বা বাদামী রঙের প্রস্রাব হওয়া ।
  •  ঘন ঘন প্রস্রাব করােএবং স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি প্রস্রাব। হওয়া ।
  •   প্রস্রাব দূর্গন্ধ এবং ফেনাযুক্ত প্রস্রাব হওয়া ।

আরও পড়ুন :সিজারের পর কোমর ব্যাথার কারণ ও সমাধান


 কিডনির পাথর দূর করার উপায়-


লেবুর রস-অলিভ অয়েল
যারা অস্ত্রোপচার ছাড়াই সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে কিডনির পাথর থেকে মুক্তি পেতে চান তারা পাতিবুর রস ও অলিভ অয়েলের মিশ্রণ খান। কিন্তু পাথরটি সম্পূর্ণ গলে না গেলে, এটি অবশ্যই দেখতে হবে। কুসুম গরম পানিতে  লেবুর রস মিশিয়ে পান করুন বা একই সময়ে লেবুর রস পান করুন।

পর্যাপ্ত পানি :
কিডনিতে পাথর হওয়ার সাথে ডিহাইড্রেশনের অনেক সম্পর্ক রয়েছে। প্র্রচুর পুরমানে পান করার অভ্যাস করুন  যা কিডনিতে পাথর নিরাময়ে সাহায্য করতে পারে। পানি শরীর থেকে অতিরিক্ত টক্সিন বের করে দিতেও সাহায্য করে। যাদের কিডনিতে পাথর আছে তাদের ক্ষেত্রে কিডনি রোগ প্রতিরোধে সাত থেকে আট গ্লাস পানি পান করুন। তবে অবশ্যই আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে ভুলবেন না ।

আপেলের রস বা ভিনেগার:
আপেলে থাকে সাইট্রিক অ্যাসিড। দুই চামচ আপেলের রস গরম পানিতে মিশিয়ে পান করলে কিডনির পাথর গলে যায়। তারপর এটি প্রস্রাবের সাহায্যে শরীর থেকে বের হয়ে যায় । আপেল অতিরিক্ত টক্সিন দূর করতেও সাহায্য করে। আপেল সিডার ভিনেগারে থাকা অ্যাসিটিক অ্যাসিড কিডনির পাথর অপসারণ করতে এবং ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। পানিতে দুই টেবিল চামচ আপেল সিডার  ভিনেগার মিশিয়ে পান করুন।
ডালিম :
প্রতিদিন ডালিম খেলে শরীরে রক্তের পরিমাণ বাড়ে, কিডনির পাথর থেকেও মুক্তি পাওয়া যায়। এছাড়াও, ডালিমে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি রয়েছে। তাই এটি স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। এই ফলটি শরীরকে হাইড্রেট করতে ভালো কাজ করে। ডালিমের রসে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কিডনিকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে এবং পাথর ও অন্যান্য টক্সিন বের করে দেয়। সারা দিনে কতবার পান করবেন তা চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ঠিক করুন।
 ভুট্টার আটা :
জলের সাথে ভুট্টার ভুসি মিশিয়ে ফুটিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি নিয়মিত খান। কিডনির পাথর ধীরে ধীরে চলে যাবে। এটি প্রস্রাবের সমস্যাও দূর করে।
তুলসী পাতা :
তুলসী পাতায় থাকা অ্যাসিটিক অ্যাসিড কিডনিতে পাথর ভাঙতে সাহায্য করে। প্রতিদিন অন্তত দুবার তুলসীর রস খান। আর তুলসী পাতা দিয়ে চা পান করতে পারেন।
মেথি বীজ :
তুলসী পাতায় থাকা অ্যাসিটিক অ্যাসিড কিডনিতে পাথর ভাঙতে সাহায্য করে। প্রতিদিন অন্তত দুবার তুলসীর রস খান। আর তুলসী পাতা দিয়ে চা পান করতে পারেন । মেথি বীজ কিডনির আশ্রয় এবং চিকিত্সার জন্য। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে বীজ কিডনি জমা এবং কিডনি পাথর পাস করে। এক কাপ ফুটন্ত পানিতে 1 থেকে 2 চা চামচ শুকনো মেথির বীজ যোগ করুন। প্রতিদিন এটি পান করুন।

পড়ুন :কিডনি ক্যান্সার বা রেনাল ক্যান্সার হলে আপনার শরীরে যে ধরনের লক্ষণ দেখা দিতে পারে 
 
 
কালিজিরা :
কালিজিরা বীজ একটি গবেষণা অনুযায়ী, কালিজিরা বীজ উল্লেখযোগ্যভাবে কিডনিতে ক্যালসিয়াম অক্সালেট পাথর গঠনে বাধা দেয়। 250 মিলি গরম পানিতে আধা চা চামচ শুকনো কালিজিরা বীজ যোগ করুন। এটি দুবার পান করুন।
তবে ব্যবহারের আগে পরামর্শ নিন।

পড়ুন:নরমাল ডেলিভারির উপকারিতা কী? যে সকল খাবার নরমাল ডেলিভারিতে সহায়তা করে থাকে?

পরিশেষে আমরা বলতে পারি যে


যেহেতু  কিডনি একটি মানব দেহের অতি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। তাই খাবারদাবারে আমাদের পরিবর্তন আনতে হবে। যে সমস্ত খাবার খেলে কিডনির ক্ষতি হতে পারে সে সমস্ত খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। তারপরেও  রোগ হতেই পারে রোগ হলে বা কোন উপসর্গ দেখা দিলে অবহেলা না করে দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
Top