শিশুর বয়স এক বৎসর পার না হলে কোন কোন খাবার দেওয়া যাবে না?

0

একজন নতুন মায়ের জন্য এই লেখাটি গুরুত্বপূর্ণ। কেননা নতুন যারা প্রথম বারের মতো সন্তান জন্ম দিয়ে থাকেন তাদের কাছে সন্তান লালন-পালনের অনেক বিষয় অজানা থাকে। এছাড়াও শিশুর যত্ন নেওয়া অত্যান্ত একটি জটিল কাজ। কেননা শিশুর বিষয়গুলো বড়দের মতো নয়। আজকের এই লেখাটিতে আমরা আলোচনা করেছি শিশুর বয়স এক বৎসর পার না হলে কোন কোন খাবার দেওয়া যাবে না বিষয় নিয়ে।

একটি শিশু পৃথিবীতে আসার পর সবকিছুর সাথে খাপ খাইযে বেড়ে উঠতে তার অনেকটা সময় লাগে। তাই এই সময়ে অবিভাবক বিশেষ করে মায়ের অধিক কষ্ট ও পরিশ্রম সহ্য করতে হয়। বিশেষভাবে নজর দিতে হয় শিশুর খাবারের প্রতি।

শিশুর বয়স এক বৎসর পার না হলে কোন কোন খাবার দেওয়া যাবে না?


শিশুর জন্মের পর অন্তত এক বৎসর সময় যাবৎ শিশুর খাবারের প্রতি বিশেষভাবে সতর্ক থাকতে হবে। অবিভাবককে আবিশ্যিকভাবে জানতে হবে যে, শিশুকে কোন খাবার দেওয়া যাবে এবং কোন খাবার দেওয়া যাবে না।

এক বছরের ছোট শিশুর জন্য যে খাবার ক্ষতিকর

প্রথমত মনে রাখতে হবে যে, শিশুর জন্মের প্রথম ছয় মাস শিশুর জন্য বুকের দুধই যথেষ্ঠ। এই সময় শিশুকে অন্য কোন খাবার দেওয়া যাবে না।

শিশুর বয়স ছয় মাস পার হলে অন্যান্য খাবার খাওয়া শিখানো যেতে পারে। তবে প্রথম দিকে খুবেই অল্প অল্প করে শুধুমাত্র শিশুকে খাবার খাওয়ানো শিখার জন্য।

তবে কিছু খাবার রয়েছে যা শিশুর জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। নিচে এই বিষয়ে আলোচনা করা হলো।

 

ছোট শিশুকে লবণ খেতে দিবেন না

আয়োডিনের ঘাটতির সবচেয়ে বড় উৎস হল লবণ। শিশুর বিকাশের জন্য লবণ খুবই প্রয়োজনীয়। কিন্তু এক বছর বয়সের আগে শিশুকে কখনই লবণ খেতে দেবেন না। মায়ের বুকের দুধে পর্যাপ্ত পরিমাণে সোডিয়াম থাকে।

তাই শিশুকে আলাদা করে লবণ খাওয়াবেন না। এক বছর বয়সের আগে লবণ খেলে উচ্চ রক্তচাপ, কিডনিতে পাথর, পানিশূন্যতা এবং শিশুদের হাড় ক্ষয়ের মতো সমস্যা হতে পারে। তাই শিশু থেকে লবণ দূরে রাখুন।

মধু খাওয়া যাবে না ছোট মনিকে

অনেকের বিশ্বাস শিশুর মুখে মধু দিলে শিশুর কথাবার্তা মিষ্টি হয়। তাই অনেক জায়গায় শিশুদের মধু খাওয়ানোর প্রচলন রয়েছে। কিন্তু এটি একটি ধারণা মাত্র। এর কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই।

এক বছর বয়সের আগে শিশুকে মধু দেবেন না। কারণ মধু খেলে শিশুর শরীরে এক ধরনের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া আক্রমণ করতে পারে। এমনকি শিশুর মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

 

এক বছরের ছোট শিশুকে গরুর দুধ পান করাবেন না

গরুর দুধ যে পুষ্টিকর তাতে কোনো সন্দেহ নেই। এর ভিতরে থাকা বিভিন্ন উপাদান আমাদের শরীরের জন্য খুবই উপকারী। কিন্তু এক বছর বয়সের আগে বাচ্চাকে গরুর দুধ খেতে দেবেন না।

কারণ শিশুর শরীর গরুর দুধের পুষ্টিগুণ সঠিকভাবে হজম করতে পারে না। তাই এক বছর বয়সের আগে গরুর দুধ খাওয়ালে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে।

 

শিশুর জন্য পরিশোধিত চিনি নিষিদ্ধ করুন

পরিমার্জিত চিনি প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য নিষিদ্ধ নয়। কিন্তু আপনার শিশুকে এক বছর বয়সের আগে পরিশোধিত চিনি দিয়ে কিছু খেতে দেবেন না। শিশু খাদ্য এবং কার্বোহাইড্রেট থেকে প্রয়োজনীয় চিনি পায়।

তাই তাকে আলাদা করে মিষ্টি খেতে দিলে স্থূলতা, দাঁতের ক্ষয়, ডায়াবেটিসের মতো মারাত্মক সমস্যা দেখা দিতে পারে। এক বছর বয়সের আগে শিশুকে ক্যান্ডি, চকলেট, কোমল পানীয় ইত্যাদি খেতে দেবেন না।

Tags

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
Top