চুল পড়া রোধে যে ১০ টি খাবার খুবেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে

0

মেয়ে কিংবা ছেলে সবার জন্য চুল অনেক গুরুত্বপূর্ণ । ছেলেদের চুলের রোগ হলে ধীরে ধীরে ছেলেটি টাক হয়ে যায়। আর মেয়েদের চুল যদি পড়ে যায়, তাহলে তা আরো ভয়াবহ অবস্থা সৃষ্টি হতে পারে। চুলের রোগ বলতে আমারা সাধারণ চুল পড়াকেই বুঝে থাকি। তবে চুল পড়া ছাড়াও আরো রোগ হতে পারে। আজকে এই টিপসটিতে আমরা আলোচনা করবো কিভাবে আপনি চুলের যত্ন নিবেন।

চুলের রোগ কি? দিন দিন চুল পড়ে গেলে করণীয় কি?
ছবি:সংগৃহিত

চুলের রোগ বা এলোপেসিয়া কি?

মাথার চুল পড়া সমস্যাটিকে বলা হয় এলোপেসিয়া। ছেলেদের ক্ষেত্রে এই রোগটি স্থানীয় টাক সমস্যা হিসাবেও পরিচিত। এটি মলূত এক ধরণের সয়ংক্রিয়ভাবে মুক্তিযোগ্য একটি রোগ।

টাক মূলত শরীরের একটি অংশে কিংবা সকল অংশ জুড়ে ঘটতে পারে। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় মাথার খুলিতে নিজের ত্বক কোষ নিজেকেই চিনতে পারে না। ফলে নিজের কলা ধংস করে থাকে। এটি একটি আক্রমণ হিসাবে কাজ করে।

প্রথমিকভাবে একটি ছোট অংশের চুল ঝড়ে পরে। আস্তে আস্তে তা বিস্তার লাভ শুরু করে। এক থেকে দুই শতাংশের ক্ষেত্রে সমগ্র মাথায় এই রোগ ছড়িয়ে পড়তে পারে কিংবা বহি: ত্বকের সমগ্র অংশে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

এই রোগটি সাধারণত বংশগত কারণে হয়ে থাকে। তবে প্রথমিক পর্যায়ে সঠিক পদক্ষেপ না নিলে এটি বিস্তার লাভ করে থাকে। এমনকি টকও হতে পারে। যাইহোক চুলের যত্ন নেওয়ার জন্য আপনার করণীয় কি তা নিচে তুলে ধরা হলো।

 

চুল পড়া রোধে যে সব খাবার ভূমিকা রাখে 

চুল পড়া রোধে খাবারের গরুত্ব
ছবি: সংগৃহিত


()বাদাম যেমন কাঠবাদাম, চিনা-বাদাম,কাজুবাদাম, পেস্তাবাদাম, walnut ইত্যাদি। এগুলোতে আছে healthy  fat. যাচুলের গোড়া সতেজ রাখতে এবং চুল লম্বা করতে সাহায্য করে।তাই প্রতিদিনের নাস্তায় কিছু বাদাম রাখতে পারেন তবে বেশি খাওয়া যাবে না তাহলে ওজনবেড়ে যেতে পারে।

()হলুদ সবজি ফলমূল : মিষ্টিআলু,গাজর,আম,পেঁপে, মিষ্টিকুমড়া।এগুলোভিটামিন A তে ভরপুর। চুলেরগোড়া মজবুত করতে ভিটামিন A প্রয়োজন।আর সেটার খুব ভালো উৎস হলো এই হলুদ সবজি ফলমূল। তাই দিনে কিছু হলুদ ফল বা সবজিখেতে পারেন।

()তৈলাক্ত মাছ : টুনা, সালমন সহ সকল সামুদ্রিকমাছ।তবে আমরা আমাদের দেশীয় মাছ থেকেও এই পুষ্টি পেতেপারি।

() ডিম : সুন্দর চুলের জন্য ডিম আপনার খুব ভালো বন্ধু। আমাদের চুল প্রোটিনের তৈরি আর খাবারে প্রোটিনেরঅভাব হলে চুল পড়া শুরু করে।তাই সুন্দর চুলের জন্য খাবারের তালিকায় ডিম রাখবেন।

()পালং শাক : চুলের উপকারে পালং শাক খুব চমৎকার একটি খাদ্য। এতে ৪টি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রয়েছে যা চুলকে ভেতরথেকে পুষ্টি জোগায়। ভিটামিন A,C, Iron,ফোলেট।এই সবগুলোই সুন্দর চুলের জন্য প্রয়োজন।

() ডাল : সুন্দর চুলের জন্য ডাল খুব উপকারী। ডালের প্রোটিন আছে ভালো পরিমাণে আয়রন আছে।আয়রন আমাদের মাথার তালুতে রক্ত সরবরাহ করে  অক্সিজেনপৌঁছাতে সাহায্য করে।সুন্দর চুলের জন্য ডালে আরো কিছু উপাদান রয়েছে যেমন জিংক, পোলেট।ডাল পাতলা না করে ঘনকরে রান্না করে খেলে এই পুষ্টি উপাদানগুলো পাওয়া যাবে।

() বিভিন্ন ধরণের বীজ যেমন চিয়া সীড,মিষ্টি কুমড়ার বিচি,সূর্যমুখী বিচি,তিসির বীজ।এগুলোতে সুন্দর চুলের জন্য চমৎকার উপাদান রয়েছে।

()ছোলা : ছোলায় চুলের জন্য তিনটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রয়েছে যেমন আয়রন, জিংক,প্রোটিন। আর এগুলোর অভাবেচুল পড়তে পারে তাই খাদ্য তালিকায় এগুলো রাখতে পারেন।

()টক দই, এটাপ্রোটিনের আরেকটা উৎস।

() টক ফল যেমন কমলা,মাল্টা,লেবু,কিউই ফল। এগুলোতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন C রয়েছে।সুন্দর চুলের জন্য ভিটামিন সি খুব গুরুত্বপূর্ণ।যেমন একটা কমলা থেকে ৮০% ভিটামিন সি এর ঘাটতিপূরণ হয়।এছাড়া আমরা টমেটো, পেয়ারা এসব খেতে পারি।

(১০)মেথি-প্রতিদিন রাত্রে ১ চা চামুচ মেথি ১ গ্লাস পানিতে ভিজিয়ে রেখে সকালে খালি পেটে খেলে চুল পড়া রোধ হয় ।পাশা-পাশি গ্যাসষ্টিকের সমস্যা আছে তারা খুব ভালো উপকার পাবেন ।

আরও পড়তে পারেন ......

চুলেরপুষ্টির জন্য যা যা করণীয়

চুলের জন্য পুষ্টিকর খাবার
ছবি:সংগৃহিত


)তেল ভিটামিন টেবলেট: পামকিন সীড অয়েল বা কদুর তেল।এইতেলটি মাস ব্যবহারকরলে চুল গঁজাতে সাহায্য করে।এবং চুল আগের থেকে মোটা হয়েছে।এছাড়া ভিটামিন ডি টেবলেট খেতেপারেন।

)কন্ডিশনার চুল শুকানো: প্রতিবার শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার ব্যবহারকরা।ভেঁজা চুল ঘষে ঘষে মুছবেন না এতে চুলনষ্ট হয়।বরং তোয়ালে দিয়ে আলতো আলতো করে মুছে নিবেন। ভেঁজা চুল আচড়ানো যাবে না।

)মোটা দাড়ের চিড়ুনি দিয়ে চুল আঁচড়ানো।

)রোদে/বাতাসে চুল শুকানো।

)চুল টাইট করে না বাঁধা।

আরো পড়ুন.....

জেনে নিন, যৌবন ধরে রাখতে ১৫ টি খাবারের ভূমিকা

সাদা স্রাব( Leucorrhoea) কী  কারণে হয়ে থাকে? ঘরোয়া উপায়ে কীভাবে সাদা স্রাব প্রতিরোধ করবেন?

 

চুল পড়ার চিকিৎসা

কিছুরোগের কারণে চুল পড়তে পারে যেমন থাইরয়েড, রক্ত শূণ্যতা ইত্যাদি। চুল পড়তে থাকার একটা অন্যতম কারণ হলো " Androgenetic  Alopecia ". এই রোগের জন্যসাধারণত ছেলেদের মাথায় ঠাক পড়ে।আর মেয়েদের সাধারণত টাক হয় না তবেচুল পড়তে থাকে, মাথার সীথি বড় হয়ে যায়অনেক। সেক্ষেত্রে একজন Dermatologist বা ত্বক-বিশেষজ্ঞচিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জুরুরি।



একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
Top